মঙ্গলবার ২৭ অক্টোবর ২০২০, ১১ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

৮ দিনেও সন্ধান মেলেনি কুষ্টিয়ার পদ্মা নদীতে নিখোঁজ ব্যক্তির

প্রকাশিত : ০৩:২০ অপরাহ্ণ, ৬ এপ্রিল ২০২০ সোমবার ৯৮ বার পঠিত

অনলাইন নিউজ ডেক্স :

নিজ সংবাদ ॥ কুষ্টিয়া সদর উপজেলার হাটশ হরিপুর ইউনিয়নে পদ্মা নদীতে গত ২৯ মার্চ রাতে মাছ ধরতে গিয়ে পুরাতন কুষ্টিয়ার বাসিন্দা মজনু ঘরামির ছেলে জিয়ার মিস্ত্রী (৩৫) নামে এক ব্যক্তি নিখোঁজ হয়। ৮দিন অতিবাহিত হলেও তার সন্ধান মেলেনি। এ ঘটনায় জিয়ার পিতামজনু বিশ্বাস কুষ্টিয়া মডেল থানায় একটি মামলা করে। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ শুক্রবার কুষ্টিয়া হাটশ হরিপুরের আবজাল মালিথার ছেলে সাইফুল মালিথা (৩৫), রশিদের ছেলে রঙিল (৩৩), নিমাই ছেলে লালন (৩৫), ঠান্ডুর ছেলে তারিক (৩৮), অপের ছেলে ফরিদুল (৪০) কে আটক করে। আরও আসামী করা হয় কুষ্টিয়া হাটশ হরিপুর মালিথা পাড়ার রব্বেল ডাকাতের ছেলে জুলফিকার (২৫), চর ভবানীপুর নতুর ছেলের মহিদুল (৩৮), মনির ছেলে রফিক (৩৬), নিয়ামত মন্ডলের ছেলে এশারত (৪৫)। মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, “মজনু জানায়, আমার ছেলেকে আসামীগণ অসৎ উদ্দেশ্যে তার ব্যবহৃত ০১৮৪৯২৯৭২৫৯ নং মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে যায়। কিন্তু রাত ১২টা পর্যন্ত আমার ছেলে বাড়িতে না ফেরায় আমি আসামীগণের সাথে যোগাযোগ করি। আসামীগণ প্রকাশ করে যে, আপনার ছেলে পদ্মা নদীতে ডুবে গেছে। আবার কেউ বলে যে, আমি জানি না। এই সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে প্রশাসনের লোকজনসহ দমকল বাহিনী এসে নদীতে প্রানপণে তল্লাশী চালায়। কিন্তু কোথাও আমার ছেলেকে জীবিত বা মৃত উদ্ধার করতে পারি নাই। এদিকে আমি ও আমার আত্মীয়স্বজন বিভিন্ন জায়গায় খুঁজাখুজি করে ছেলের কোন সন্ধান পায়নি। আমার ধারণা ৮নং আসামী রফিক ও ৯নং আসামী এশারতের সাথে আমার দীর্ঘদিন যাবৎ জমিজমার বিরোধ থাকায় তারা প্রভাব বিস্তার করে অর্থের বিনিময়ে আমার ছেলে জিয়ারকে হত্যা করে তার লাশ অজ্ঞাত স্থানে গুম করেছে।” নিখোঁজ জিয়ার বিশ্বাসের ভাই সাগর মাহমুদ বলেন, দীর্ঘ ৮দিন আমার ভাই ি নিখোঁজ রয়েছে। এ ঘটনার সাথে যারা জড়িত তাদেরকে শাস্তির দাবী করছি এবং তারা পরিকল্পিতভাবে এই ঘটনা ঘটিয়েছে। এই ঘটনার সাথে জড়িত ফরিদুল সাঁতার না জানলেও তিনি নদী থেকে কিভাবে বেঁচে আসলেন। আটককৃত ৫ জনকে পুলিশ রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করলেই এই নিখোঁজ হওয়ার রহস্য উদঘাটন হওয়া সম্ভব বলে এলাকাবাসী মনে করেন। এই দিকে ৮ দিন নিখোঁজ থাকায় জিয়ার পরিবারের চলছে শোকের মাতম।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি anusandhan24.com'কে জানাতে ই-মেইল করুন- anusondhan24@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

anusandhan24.com'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। anusandhan24.com | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT