শুক্রবার ১৪ মে ২০২১, ৩১শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

লকডাউন রেখেই কাজে ফিরল স্পেন : বুধবার ইতালি

প্রকাশিত : ০৯:১২ পূর্বাহ্ণ, ১৪ এপ্রিল ২০২০ মঙ্গলবার ২৩৭ বার পঠিত

অনলাইন নিউজ ডেক্স :

দু’সপ্তাহের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে গতকাল থেকে কাজের অনুমতি দিয়েছে স্পেন। আর এ দিনই সুখবর এসেছে বড় ধরনের। দেশটিতে মৃত্যু ও শনাক্তের সংখ্যায় বড় ধরনের হ্রাস পরিলক্ষিত হয়েছে। মৃত রোববারের ৫১৭ থেকে নেমে ২৮ তে দাঁড়িয়েছে এবং শনাক্ত নেমেছে ২ হাজার ৬৬৫-তে। গতকাল স্পেন কারখানা ও নির্মাণ শিল্পের মতো অপরিহার্য নয় এমন কর্মীদের কাজের অনুমতি দিয়েছে। বৃহত্তর করোনভাইরাস লকডাউন কার্যকর থাকা সত্তে¡ও কিছু লোক কাজ করে ফিরে আসায় পুলিশ গতকাল স্প্যানিশ মেট্রো স্টেশনগুলিতে কয়েক লাখ মুখোশ কর্মীদের হাতে তুলে দিয়েছে।
এদিকে বিশ্বে করোনাভাইরাসে শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে ১৯ লাখ ছুঁইছুঁই করছে। গতরাত ১১টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বিশ্বে শনাক্ত ছিল ১৮ লাখ ৯৫ হাজার ৬১১ এবং মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ১ লাখ ১৭ হাজার ৬৫৪ জনে। আর সুস্থ হয়ে পরিবারে ফেরা মানুষের সংখ্যা দাঁড়ায় ৪ লাখ ৩৮ হাজার ১৯১ জনে। গতকাল মৃতের তালিকায় শীর্ষে ছিল যুক্তরাষ্ট্র। সেখানে ১৩ হাজারের বেশি শনাক্তের পাশাপাশি ৮২৬ জনের মৃত্যু হয়। ফলে দেশটিতে মৃতের সংখ্যা দাঁড়ায় ২২ হাজার ৯৩১ জনে। এদিন আরো মৃত্যু হয় যুক্তরাজ্যে ৭১৭, ইতালিতে ৫৬৬, বেলজিয়ামে ৩০৩, ইরানে ১১১, তুরস্কে ৯৮, হল্যান্ডে ৮৬, ব্রাজিলে ৪৮ সুইজারল্যান্ডে ৩২, পর্তুগালে ৩১, ইন্দোনেশিয়ায় ২৬, মেক্সিকোতে ২৩ এবং অস্ট্রিয়া, রাশিয়া ও ফিলিপাইনে ১৮ জন করে মানুষের।
স্পেনে অপ্রয়োজনীয় ব্যবসায় দুই সপ্তাহের ‘নিষ্ক্রিয়তা’ আরোপ করা হয়েছিল গত ৩০ মার্চ। লকডাউনটি ব্রিটেনের চেয়ে আরও কঠোর ছিল যেখানে লোকেরা বাড়িতে থেকে কাজ না করতে পারলেই কেবল ভ্রমণের অনুমতি দেয়া হয়। স্পেনের জন্য বিষয়টি ছিল আরও উৎসাহের, কারণ নতুন শনাক্তের সংখ্যা গত ২০ মার্চের পর গত রোববার সবচেয়ে কম ৩ হাজার ৪৭৭-এ নেমে আসে। দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যাও শনিবারের ৬১৯ থেকে রোববার কমে দাঁড়ায় ৫১৭ জনে।
এদিকে, ইউরোপের দীর্ঘতম লকডাউনের প্রথম শিথিলতায় ইতালি আজ বইয়ের দোকান, স্টেশনারি এবং বাচ্চাদের পোশাক বিক্রির দোকানগুলো খোলার অনুমতি দেবে।
ডেনমার্কে কিছু বাবা-মায়েদের কাজে ফেরার অনুমতি দিয়ে বুধবার স্কুল এবং ডে কেয়ার সেন্টারগুলো পুনরায় চালু করা হবে। অস্ট্রিয়াতেও চলতি সপ্তাহে কিছু দোকান খোলার কথা রয়েছে। তবে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাখোঁ সতর্ক করে বলেছেন, সেখানে লকডাউন আরও কয়েক সপ্তাহ চলবে।
কিছু আঞ্চলিক নেতা এবং ট্রেড ইউনিয়নের পক্ষ থেকে এ প্রাদুর্ভাব পুনরুত্থানের আশঙ্কা সত্তে¡ও স্পেন গতকাল অ-অপরিহার্য কাজের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা সরিয়ে নিয়েছে। গতকাল কাজে ফিরে আসা লোকদের মধ্যে ধাতবকর্মী, নির্মাণকর্মী, ক্লিনার, কারখানা এবং শিপইয়ার্ড কর্মী এবং স্যানিটেশন এবং নিরাপত্তা কাজে জড়িত ব্যক্তিরা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। দেশটি ১৪ মার্চ থেকে সাধারণ লকডাউনে রয়েছে। তবে ইস্টার পর্যন্ত দু’সপ্তাহের জন্য সমস্ত অ-অপরিহার্য ব্যবসা বন্ধ হয়ে যাওয়ার পরে ৩০ মার্চ আরও কঠোর করা হয়।
নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি যুক্তরাজ্যের চেয়ে আরও কঠোর ছিল, যেখানে লকডাউনের সময় বাড়ি থেকে একই সেবা দেয়া ‘যুক্তিসঙ্গতভাবে সম্ভব’ না হলে লোকেরা কাজ করতে পারে।
স্পেনের লকডাউন কার্যকর রয়েছে এবং সম্ভবত এটি বাড়ানো হতে পারে, তবে সরকার ব্যবসা বন্ধের নির্দেশনা বাড়ায়নি। শ্রমিকরা এবং তাদের সংস্থাগুলো ভাইরাসে সংক্রামিত যেন না হয় তা নিশ্চিত করার জন্য কঠোর বিধিমালা মেনে চলতে হবে। বার্গোস-ভিত্তিক শিল্প গোষ্ঠী নিকোলাস কোরিয়া নামে একটি সংস্থা বলেছে যে, তারা তাদের কর্মীদের স্বাস্থ্যের অগ্রাধিকারের ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।
এতে বলা হয়েছে, ‘কর্মীদের ঘনত্ব এড়াতে আমরা কাজ চালিয়ে যাব। এতে আরও বলা হয়েছে, সমস্ত শ্রমিককে প্রতিরক্ষামূলক সরঞ্জাম সরবরাহ করা হবে। পুলিশ গতকাল মাদ্রিদ মেট্রো সিস্টেমসহ ট্রেন স্টেশনগুলিতে ফেস মাস্কও সরবরাহ করেছে।
কাজে প্রত্যাবর্তনকারী শ্রমিকদেরও পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে, তারা যেন সরঞ্জাম ভাগ করে না নেয়, গ্লাভস এবং মাস্ক পরে থাকে, ৬ ফুটে দূরে অবস্থান করে এবং গণপরিবহণে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখে। বার, নাইটক্লাব, পাব এবং রেস্তোরাঁসহ অন্যান্য ব্যবসা এখনও বন্ধ রয়েছে এবং কয়েক সপ্তাহ ধরে এটি থাকতে পারে। খাবারের দোকান, ফার্মেসী এবং চিকিৎসা কেন্দ্র, গ্যাস স্টেশন, পোষাপ্রাণির খাদ্য ও প্রযুক্তির দোকান, ইন্টারনেট বাণিজ্য এবং লন্ড্রি সর্বদা উন্মুক্ত রয়েছে।
স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সানচেজ সতর্ক করেন যে, মহামারীটি নিয়ে দেশটি ‘জয়ের থেকে অনেক দূরে। তিনি বলেন, ‘আমরা সকলেই রাস্তায় ফিরে যেতে আগ্রহী … তবে যুদ্ধে জয়লাভ এবং পুনরায় সংক্রমণ রোধে আমাদের আকাক্সক্ষা আরও বেশি’।
বৃহস্পতিবার লকডাউন ৩ মে পর্যন্ত বাড়ানো সত্তে¡ও আজ ইতালিতে কিছু দোকান খোলা হবে। প্রধানমন্ত্রী জিউস্পে কন্টি বলেছেন, ইস্টার উইকএন্ডের পরে মঙ্গলবার থেকে বইয়ের দোকান, স্টেশনারি এবং শিশুদের পোশাক বিক্রির দোকান আবার খুলতে পারে।
তবে শিল্পপ্রধানদের অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের হুঁশিয়ারি সত্তে¡ও শিল্প কারখানা বন্ধ থাকবে। অঞ্চলগুলির মধ্যে কিছুটা মতবিরোধও রয়েছে। লোম্বার্ডির গভর্নর বলেছেন,তার শক্ত-ক্ষতিগ্রস্থ অঞ্চলে বইয়ের দোকানগুলো বন্ধ থাকবে, তবে লিগুরিয়ার নেতা চান কিছু নির্মাণ সাইট আবার খোলা হোক।
ইটালি ৯ মার্চ থেকে দেশব্যাপী লকডাউনে রয়েছে, অন্য কোনও ইউরোপীয় দেশের তুলনায় এটি দীর্ঘ। শুক্রবার কন্টি দ্বিতীয়বারের জন্য ৩ মে পর্যন্ত লকডাউন বাড়ানোর ঘোষণা দেন। কন্টি একটি সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘এটি একটি কঠিন তবে প্রয়োজনীয় সিদ্ধান্ত, যার জন্য আমি সমস্ত রাজনৈতিক দায়িত্ব গ্রহণ করি’।
কন্টি বলেছেন, তিনি কোভিড-১৯ সংক্রমণের প্রতিদিনের প্রবণতাটি মূল্যায়ন করবেন এবং পরিস্থিতি যদি এটির অনুমতি দেয় তবে ‘সেই অনুযায়ী কাজ করবেন’।
ইউরোপীয় দেশগুলির মধ্যে প্রথম বন্ধ হয়ে যাওয়া ডেনমার্ক আগামীকাল বুধবার প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণির শিশুদের জন্য ডে-কেয়ার সেন্টার এবং স্কুল পুনরায় চালু করবে। ক্যাফে, রেস্তোরাঁ ও জিমের পাশাপাশি ১১ মার্চ থেকে স্কুল ও শিশু যতœ কেন্দ্র বন্ধ রয়েছে। কমপক্ষে ১০ মে অবধি ১০ জনেরও বেশি লোকের জমায়েতে নিষেধাজ্ঞা থাকবে এবং আগস্ট পর্যন্ত বৃহত্তর সমাবেশ নিষিদ্ধ থাকবে।
প্রধানমন্ত্রী মেটে ফ্রেডেরিক্সেন একটি সংবাদমাধ্যম ব্রিফিংয়ে বলেছেন, ‘এটি সম্ভবত কিছুটা শক্ত রশির ওপর হাঁটার মতো হবে। আমরা পড়ে যেতে পারি সেই পথে আমরা যদি দাঁড়িয়ে থাকি এবং যদি আমরা খুব দ্রুত চলে যাই তবে এটি ভুল হতে পারে। সুতরাং, আমাদের অবশ্যই একবারে একটি সতর্ক পদক্ষেপ নিতে হবে’।
সঙ্কটের আগে দেশটি পূর্ণ কর্মসংস্থানের কাছাকাছি ছিল যেখানে বেকারত্বের হার ছিল ৩.৭ শতাংশ, যা এক দশকের মধ্যে সবচেয়ে কম। এমনকি জরুরি অর্থনৈতিক ব্যবস্থা গ্রহণের পরেও ডেনমার্ক অন্যান্য অনেক দেশের মতো এখনও বেকারত্বের প্রবণতা লক্ষ্য করছে।
মার্চের মাঝামাঝি দেশটিতে নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা প্রবর্তনের পর থেকে প্রতিদিন দ্বিগুণ হারে মানুষ বেকারত্বের জন্য নিবন্ধন করে চলেছে বলে কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় জানিয়েছে। কনফেডারেশন অফ ডেনিশ ইন্ডাস্ট্রির ইতোমধ্যে অনুমান করছে যে, দেশে আর্থিক সঙ্কটের উচ্চতা ছাড়াই প্রায় ১০ হাজার বেশি বেকার রয়েছে।
ফ্রান্সের লকডাউন অন্তত আরও কয়েক সপ্তাহ অব্যাহত থাকবে বলে ফরাসী প্রেসিডেন্ট ইমমানুয়েল ম্যাখোঁ গতকাল সতর্ক করে বলেছেন। নিবিড় পরিচর্যা রোগীদের সংখ্যা গত চার দিন ধরে হ্রাস পেয়েছে এবং মৃত্যুর হারেও হ্রাসের লক্ষণ দেখা গেছে। তবে কর্মকর্তারা সতর্ক করেছেন যে, পরিস্থিতি গুরুতর রয়ে গেছে, বিশেষত প্যারিসের আশেপাশে ইলে-দে-ফ্রান্স অঞ্চলে। স্বাভাবিকভাবে দ্রুত কোনও পরিবর্তন নজরে আসেনি। লকডাউন প্রায় একমাস ধরে ফরাসিদের তাদের বাড়িতে আটকে রেখেছে। কেবলমাত্র সংক্ষিপ্তভাবে বাইরে কেনাকাটা এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় কাজের জন্য বেরুনোর অনুমতি দেয়া হয়েছে। স‚ত্র জানিয়েছে, ম্যাখোঁ লকডাউন মে পর্যন্ত অবধি বাড়াতে পারেন।
লন্ডনে স্থিতিশীল, উত্তর-পশ্চিম এবং ইয়র্কশায়ারে বাড়ছে
লন্ডনে গুরুতর করোনভাইরাসের ঘটনা স্থিতিশীল রয়েছে। একজন স্বাস্থ্য প্রধানের উদ্ধৃতিতে দি ইন্ডিপেন্ডেন্ট একথা জানিয়েছেন। ইংল্যান্ডের জনস্বাস্থ্য বিভাগের মেডিকেল ডিরেক্টর প্রফেসর যোভন ডয়েল বলেছেন, রাজধানীতে কোভিড-১৯-তে হাসপাতালে ভর্তি উচ্চস্তরে পৌঁছেছিল, তবে তা এখনও যুক্তরাজ্যের অন্যত্র বেড়ে চলেছে। মহামারী শুরু হওয়ার পর থেকে লন্ডনে ব্রিটেনের সবচেয়ে বেশি সংখ্যক এবং সবচেয়ে দ্রুত বৃদ্ধি পেয়েছিল। দেশে ভাইরাসের কেন্দ্রস্থল হিসাবে বিবেচিত রাজধানীতে এর জনসংখ্যার জন্য অসমসংখ্যক মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে যার সংখ্যা ছিল ২,৭০৭। রোববার মাত্র ২৪ ঘণ্টায় আরও ৭৩৭ জনের প্রাণহানির পর গোটা যুক্তরাজ্যের মৃতের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়িয়ে যায়।
অধ্যাপক ডয়েল বলেন, ‘আমরা লন্ডনকে স্থিতিশীল হতে দেখছি’। তবে অন্যদিকে গ্রেট ব্রিটেনের অন্যান্য অঞ্চল বিশেষত উত্তর-পশ্চিম এবং ইয়র্কশায়ারে বাড়তে দেখছি’ -তিনি আরও যোগ করেছেন।
‘বাড়িতে থাকা এবং সামাজিক দূরত্ব সম্পর্কে বার্তাটি মেনে চলা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, কারণ আমরা অবশ্যই এই সঙ্কটের ‘ক্ষয়ক্ষতি থেকে বেরিয়ে আসতে পারিনি’।
জাতীয় স্বাস্থ্য পরিষেবা ইংল্যান্ড-এর পরিসংখ্যানে দেখা গেছে যে, শুক্রবার সন্ধ্যা ৫টা অবধি লন্ডন নর্থ ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটি হেলথ কেয়ার এনএইচএস ট্রাস্টের গণনায় রাজধানীতে কোভিড-১৯-এ মৃত্যু হয়েছে ২৬৩ জনের, রয়্যাল ফ্রি লন্ডন ট্রাস্টের হিসেবে ২৫১ জন।
মৃতের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়িয়ে যাবার দিন ইস্টার সানডে-কে ‘অন্ধকার দিবস’ হিসাবে বর্ণনা করেছেন স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ম্যাট হ্যাংকক, কারণ এক বিশেষজ্ঞ সতর্ক করেছিলেন যে. ইউরোপের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ক্ষতির মুখে পড়তে হতে পারে ইউকে-কে।
লন্ডনের এক বাসচালক বলেছিলেন যে, তিনি ‘মৃত্যুর ভয়ে’ জামাইকায় তার বাবা-মাসহ আত্মীয়-স্বজনকে চিঠি লিখেছেন, কারণ তিনি জানিয়েছেন যে, ভাইরাস সংক্রমণ হলে তিনি বিদায় নেয়ার সুযোগ পাবেন না বলে আশঙ্কা করছেন। মহিলা অনলাইনে পোস্ট করা একটি ভিডিওতে জানিয়েছেন যে, তিনি নিরাপদ পরিবেশে কাজ করছেন না। তিনি বলেন, দিনের পর দিন কোনো কাজ নেই এমন লোকেরা তার বাসে উঠেছে, বিনা কারণে তাকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলেছে। সূত্র : ডেইলি মেইল ও দি ইন্ডিপেন্ডেন্ট।
চিকিৎসাকর্মীদের বিনামূল্যে হোটেলে রুম দিল হিলটন, মেরিয়ট
ইউএসএ টুডে জানায়, হিল্টন এবং আমেরিকান এক্সপ্রেস করোনাভাইরাস মহামারী প্রতিক্রিয়া নিয়ে কাজ করা ফ্রন্ট-লাইন চিকিৎসা পেশাদারদের জন্য গতকাল থেকে ১০ লাখ রুম অনুদান দিচ্ছে।
হিলটনের মতে, মে মাসের শেষের দিকে কক্ষগুলি ডাক্তার, নার্স, প্যারামেডিকস, জরুরি চিকিৎসা পেশাদার এবং অন্যান্য কর্মীদের জন্য উন্মুক্ত থাকবে। ‘তারা সত্যই বীর’, হিল্টনের প্রেসিডেন্ট এবং সিইও ক্রিস্টোফার জে ন্যাসেটটা এক বিবৃতিতে বলেছেন। ‘এই কঠিন সময়ে তাদের প্রতি আমাদের হিল্টনের আতিথেয়তা বাড়ানোর জন্য আমরা সম্মানিত’।
আমেরিকান কলেজ অব ইমার্জেন্সি ফিজিশিয়ানস হ’ল ১০টি মেডিকেল গ্রুপের মধ্যে একটি যারা চিকিৎসাকর্মীদের প্রয়োজনীয় কক্ষগুলি বরাদ্দে কাজ করছে।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি anusandhan24.com'কে জানাতে ই-মেইল করুন- anusondhan24@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

anusandhan24.com'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। anusandhan24.com | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT