শুক্রবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৯ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
◈ কিশোরীদের আত্মরক্ষার্থে মাসব্যাপী কারাতে প্রশিক্ষণের উদ্বোধন ◈ কাভার্ডভ্যান-ট্রাক মালিক-শ্রমিকদের ধর্মঘট প্রত্যাহার ◈ ‘দেশে করোনায় মৃতদের ৬০ শতাংশের বেশি ডায়াবেটিস-উচ্চরক্তচাপের রোগী’ ◈ ঘাটতি পূরণে প্রাথমিক শিক্ষকদের জন্য ১১ দফা নির্দেশনা ◈ ইভ্যালি, ই-অরেঞ্জের প্রতারণার পর এবার আলোচনায় কিউকম ◈ বাংলাদেশিদের ওপর থেকে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার জাপানের ◈ উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের নামে প্রতিবন্ধী কার্ড ◈ ১৫ দফা দাবিতে তিনদিনের ধর্মঘটের ডাক ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যান মালিক সমিতির ◈ করোনা: বরিশালে রেকর্ড সর্বনিম্ন শনাক্ত ◈ এখনও করোনা সংক্রমণের কোনও খবর আসেনি: শিক্ষামন্ত্রী

ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের বাসিন্দাদের বিশেষ মর্যাদা প্রদানের জন্য সংবিধানের ৩৭০ ধারাটি বাতিল ঘোষণা করেছে কেন্দ্রীয় সরকার

প্রকাশিত : ১০:৫১ পূর্বাহ্ণ, ৭ আগস্ট ২০১৯ বুধবার ৭৫৩ বার পঠিত

অনলাইন নিউজ ডেক্স :

ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের বাসিন্দাদের বিশেষ মর্যাদা প্রদানের জন্য সংবিধানের ৩৭০ ধারাটি বাতিল ঘোষণা করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। সোমবার (৫ আগস্ট) স্থানীয় সময় সকালে কংগ্রেসসহ সকল বিরোধীদের আপত্তি সত্ত্বেও রাজ্যসভায় কাশ্মীর সংক্রান্ত বিলটি পাস করাতে সক্ষম হয় কেন্দ্র সরকার। যদিও এই ইস্যুতে রাজ্যসভার পরে এবার উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে লোকসভাও। যার অংশ হিসেবে সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিলের প্রস্তাব এবং জম্মু ও কাশ্মীর পুনর্গঠন বিল পেশ হতেই তীব্র বিরোধিতা শুরু করেছে প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেস, ডিএমকে, তৃণমূলসহ বেশ কিছু দলের সদস্যরা।

মঙ্গলবার (৬ আগস্ট) লোকসভায় জম্মু ও কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে শুরুতেই কংগ্রেসের দলনেতা অধীর রঞ্জন চৌধুরীর সঙ্গে তুমুল বাগযুদ্ধে জড়িয়ে পড়েন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। মূলত এর পরপরই আরেক কংগ্রেস সাংসদ মণীশ তিওয়ারিও এই বিতণ্ডায় নিজেকে জড়িয়ে ফেলেন। ‘কংগ্রেস আগে নিজেদের অবস্থান স্পষ্ট করুক যে- তারা কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বহাল থাকার পক্ষে না বিপক্ষে?’ চ্যালেঞ্জ ছোঁড়ার ভঙ্গিতে মণীশকে বললেন অমিত শাহ। মূলত এর পরপরই দুদেশের নিয়ন্ত্রণ রেখা ও পরিত্যক্ত অঞ্চলের বিষয়ে কংগ্রেসের প্রশ্নের জবাবে আরও আগ্রাসী ভূমিকা পালন করেন বিজেপির এ সভাপতি। অমিত শাহ বলেন, ‘পাক অধিকৃত কাশ্মীরও আমাদের আর আকসাই চীনও আমাদের।’

এর আগে দিনের শুরুতে লোকসভায় পেশ করা হয় জম্মু ও কাশ্মীর পুনর্গঠন সংক্রান্ত একটি বিল। মূলত এর পরই শুরু হয় বিতর্ক। কংগ্রেসের দলনেতা সাংসদ অধীর চৌধুরী লোকসভার ভাষণে বলেন, ‘নিয়ম ভেঙে জম্মু ও কাশ্মীরকে ভাগ করা হয়েছে। সিমলা ও লাহৌর চুক্তি থাকা সত্ত্বেও কীভাবে এটা আমাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়? কেননা ওই দুই চুক্তি দ্বিপাক্ষিক ছিল। এবার অঞ্চলটিকে একটি কয়েদখানায় পরিণত করা হয়েছে।

যার প্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ নিজেদের পক্ষে যুক্তি দিয়ে বলেন, ‘সংবিধানে জম্মু ও কাশ্মীরকে দেশের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ বলে উল্লেখ রয়েছে। তাছাড়া রাজ্যটির সংবিধানেও এই একই কথার বলা আছে। আর তাই সেখানে আইন প্রণয়নে আমাদের কোনো বাধা নেই। জম্মু ও কাশ্মীরের মধ্যেই পাক অধিকৃত কাশ্মীরও রয়েছে। আকসাই চীনও ভারতের অংশ।’

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি anusandhan24.com'কে জানাতে ই-মেইল করুন- anusondhan24@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

anusandhan24.com'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। anusandhan24.com | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT