শনিবার ২৫ মে ২০২৪, ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বে আবারও বরিস জনসন?

প্রকাশিত : ১০:০০ পূর্বাহ্ণ, ২১ অক্টোবর ২০২২ শুক্রবার ৭৩ বার পঠিত

অনলাইন নিউজ ডেক্স :

Britain's Prime Minister and Conservative leader Boris Johnson speaks during a press conference about Brexit and the general election in London on November 29, 2019. - Britain will go to the polls on December 12, 2019 to vote in a pre-Christmas general election. (Photo by Ben STANSALL / AFP)

যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী লিজ ট্রাস পদত্যাগ করার পর পরই আলোচনা শুরু হয়েছে কে হবেন নতুন প্রধানমন্ত্রী। এর মধ্যে আলোচিত হচ্ছে তিন মাস আগে ‘বাধ্য হয়ে’ পদত্যাগ করা বরিস জনসনের নাম।

করোনার লকডাউনের নিয়ম ভঙ্গসহ বিভিন্ন ক্যালেঙ্কারির দায় মাথায় নিয়ে পদত্যাগ করেন বরিস। লিজ ট্রাস পদত্যাগ করার পর আবারও তার নাম উচ্চারিত হচ্ছে।

বরিস জনসনের নাম যে বেশ জোরেসোরেই উচ্চারিত হচ্ছে তা নিশ্চিত। কারণ যুক্তরাজ্যের প্রধান বিরোধী দল লেবার পার্টির নেতা কেয়ার স্টেরমার বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছেন।

তিনি বলেছেন, যদি বরিস জনসনকে আবারও প্রধানমন্ত্রী বানানো হয় তাহলে আগাম সাধারণ নির্বাচনের দাবি আরও শক্তিশালী হবে।

এ ব্যাপারে বিবিসির সঙ্গে স্টেরমার বলেছেন, যদি টোরিরা লিজ ট্রাসের জায়গায় বরিস জনসনকে নিয়ে আসে, তাহলে এটি আগাম সাধারণ নির্বাচনের দাবিকে আরও শক্তিশালী করবে।

তিনি আরও বলেন, মনে করিয়ে দিতে চাই তিন মাস আগে সে (বরিস) লজ্জা নিয়ে পদত্যাগ করে। সে পদত্যাগ করে কারণ তার মন্ত্রীসভার অনেকেই পদত্যাগ করছিল। তারা বলেছিল বরিস অফিস চালাতে ফিট না।

তিনি আরও বলেন, এই বিশৃঙ্খলা, অর্থনৈতিক ক্ষতি এবং অভিজ্ঞতা থেকে তারা যদি তিন মাসের আগের সেই ব্যাক্তির কাছে ফিরে যায়, যাকে ফিট না বলে গণ্য করা হয়েছিল, আমি মনে করি এটি মানুষের ক্ষতকে অপমান করবে। সাধারণ মানুষ দরজায় টোকা দিয়ে বলবে, দাঁড়ান, আমরা কেন এ ব্যাপারে কথা বলতে পারব না (সাধারণ নির্বাচনে ভোটের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচন করতে পারব না)।

তবে কনজারভেটিভ এমপি জাস্টিন টমলিনসন স্কাই নিউজকে বলেছেন, যদিও তিনি বরিস জনসনের সমর্থক ছিলেন। কিন্তু তাকে আবার নেতা বানানো ঠিক হবে না।

বরিস জনসন বর্তমানে ক্যারিবিয়ান দ্বিপপুঞ্জে অবসর সময় কাটাতে গেছেন। লিজ ট্রাস পদত্যাগ করার পর তার কোনো প্রতিক্রিয়া এখনো পাওয়া যায়নি। ফলে বরিস জনসন নিজে আবারও প্রধানমন্ত্রী হওয়ার লড়াইয়ে দাঁড়াবেন কিনা সেটি নিয়েও কথা আছে।

সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি anusandhan24.com'কে জানাতে ই-মেইল করুন- anusondhan24@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

anusandhan24.com'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।



এই বিভাগের জনপ্রিয়

ইরানি বংশোদ্ভূত দুই ব্রিটিশ নাগরিককে দীর্ঘদিন বন্দি রাখার পর মুক্তি দিয়েছে তেহরান। ৪৩ বছর আগের দেনা হিসেবে যুক্তরাজ্য ৪০ কোটি পাউন্ড ইরানের কাছে হস্তান্তরের পর তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।     বিবিসির প্রতিবেদন অনুযায়ী, মুক্তির পর নাজানিন জাঘারি ও আনোশেহ আশোরি যুক্তরাজ্যে পৌঁছেছেন।  নাজানিন জাঘারি প্রায় ছয় বছর ধরে ইরানে বন্দিজীবন কাটিয়েছেন। সরকার উৎখাতের ষড়যন্ত্র করেছেন বলে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়।  নাজানিন জাঘারি ও আনোশেহ আশোরিকে বহনকারী প্লেন অক্সফোর্ডশায়ারের ব্রিজ নর্টন ব্রিটিশ সামরিক বিমানঘাঁটিতে অবতরণ করে। এর আগে তারা ওমানে সাময়িক সময়ের জন্য যাত্রা বিরতি নেন।  তারা একসঙ্গেই প্লেন থেকে নেমে আসেন এবং বিমানবন্দরে প্রবেশের পর পর উপস্থিত লোকজনের উদ্দেশে হাত নাড়েন। এদিকে মার্কিন নাগরিকত্ব থাকা মোরাদ তাহবেজ নামে আরও একজনকেও কারাগার থেকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে।  বুধবার তাদের মুক্তির বিষয়টি নিশ্চিত করেন ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী লিজ ত্রাস এবং প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।   এ বিষয় ইরানের গণমাধ্যম জানিয়েছে, এর আগে ইরানের কাছে ইসলামি বিপ্লবের আগে অর্থাৎ প্রায় ৪৩ বছর আগের দেনা হিসেবে ব্রিটিশ সরকার তেহরানকে ৪০ কোটি পাউন্ড (৫২০ মিলিয়ন ডলার) প্রদান করেছে।  ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেন, এটি নিশ্চিত করতে পেরে আমি খুব খুশি, নাজানিন জাঘারি এবং আনোশেহ আশোরিকে অন্যায়ভাবে বন্দি রাখার দিন শেষ হয়েছে। তারা মুক্তি পেয়ে যুক্তরাজ্যে ফিরেছে।

ইরানি বংশোদ্ভূত দুই ব্রিটিশ নাগরিককে দীর্ঘদিন বন্দি রাখার পর মুক্তি দিয়েছে তেহরান। ৪৩ বছর আগের দেনা হিসেবে যুক্তরাজ্য ৪০ কোটি পাউন্ড ইরানের কাছে হস্তান্তরের পর তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। বিবিসির প্রতিবেদন অনুযায়ী, মুক্তির পর নাজানিন জাঘারি ও আনোশেহ আশোরি যুক্তরাজ্যে পৌঁছেছেন। নাজানিন জাঘারি প্রায় ছয় বছর ধরে ইরানে বন্দিজীবন কাটিয়েছেন। সরকার উৎখাতের ষড়যন্ত্র করেছেন বলে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়। নাজানিন জাঘারি ও আনোশেহ আশোরিকে বহনকারী প্লেন অক্সফোর্ডশায়ারের ব্রিজ নর্টন ব্রিটিশ সামরিক বিমানঘাঁটিতে অবতরণ করে। এর আগে তারা ওমানে সাময়িক সময়ের জন্য যাত্রা বিরতি নেন। তারা একসঙ্গেই প্লেন থেকে নেমে আসেন এবং বিমানবন্দরে প্রবেশের পর পর উপস্থিত লোকজনের উদ্দেশে হাত নাড়েন। এদিকে মার্কিন নাগরিকত্ব থাকা মোরাদ তাহবেজ নামে আরও একজনকেও কারাগার থেকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। বুধবার তাদের মুক্তির বিষয়টি নিশ্চিত করেন ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী লিজ ত্রাস এবং প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। এ বিষয় ইরানের গণমাধ্যম জানিয়েছে, এর আগে ইরানের কাছে ইসলামি বিপ্লবের আগে অর্থাৎ প্রায় ৪৩ বছর আগের দেনা হিসেবে ব্রিটিশ সরকার তেহরানকে ৪০ কোটি পাউন্ড (৫২০ মিলিয়ন ডলার) প্রদান করেছে। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেন, এটি নিশ্চিত করতে পেরে আমি খুব খুশি, নাজানিন জাঘারি এবং আনোশেহ আশোরিকে অন্যায়ভাবে বন্দি রাখার দিন শেষ হয়েছে। তারা মুক্তি পেয়ে যুক্তরাজ্যে ফিরেছে।

© ২০২৪ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। anusandhan24.com | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT