শুক্রবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২রা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য আদর্শ যেসব ফল

প্রকাশিত : ০৯:৫৪ পূর্বাহ্ণ, ১৪ আগস্ট ২০২১ শনিবার ১১ বার পঠিত

অনলাইন নিউজ ডেক্স :

স্থূলতা পর্যাপ্ত ইনসুলিন তৈরি না হতে পারার অন্যতম কারণ। আদর্শ ওজন রক্তে শর্করার মাত্রা ঠিক রাখে। তাই টাইপ-১ বা টাইপ-২ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত রোগীদের খাদ্যতালিকা ঠিক রাখা খুব প্রয়োজন। যেসব খাবারে গ্লাইসেমিক ইনডেক্স (জিআই) কম ও ফাইবারের পরিমাণ বেশি, সেগুলো ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য সবচেয়ে ভালো। কারণ এসব খাবার রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণের ওপর ইতিবাচক প্রভাব সৃষ্টি করে।

টক ফলে শর্করা কম থাকে। ডায়াবেটিস রোগীর উপকারী ফলের তালিকায় থাকবে লেবু, আমলকী, সবুজ আপেল, বাতাবি লেবু। আমেরিকান ডায়াবেটিস অ্যাসোসিয়েশন’র তথ্য অনুযায়ী কিছু ফলে উপকারী ভিটামিন এবং ফাইবার রয়েছে। এসব উপাদান টাইপ টু ডায়াবেটিস দূরে রাখতে সহায়তা করে।

আমলকী: আমলকীতে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন সি আছে। ডায়াবেটিস রোগীরা নিয়মিত আমলকী খেলে রক্তের চিনির পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে থাকবে।
আমড়া: আমড়া একটি পুষ্টিকর টক ফল। ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য ভিটামিন সি সমৃদ্ধ এই ফলটি খুবই উপকারী।

পেয়ারা: প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ, ভিটামিন সি এবং ডায়েটারি ফাইবার রয়েছে পেয়ারায়। ডায়েটারি ফাইবার থাকার কারণে জিআই খুবই কম পরিমাণে থাকে যা রক্তের শর্করা না বাড়িয়েই শরীরে দেয় বাড়তি পুষ্টি। এছাড়াও ডায়েটারি ফাইবার কোষ্ঠকাঠিন্য কমাতেও সহায়তা করে।

আনারস: আনারস অ্যান্টি ভাইরাল, অ্যান্টি ইনফ্ল্যামাটরি এবং অ্যান্টি ব্যাকটরিয়াল একটি ফল, যা খেলে দেহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেড়ে যায়, ফলে সাধারণত ভাইরাল জ্বরে আনারস অনেক বেশি কাজে দেয়। এছাড়া ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণেও আনারস বেশ কার্যকরি।

স্ট্রবেরি ফল: ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য খাদ্য তালিকায় অনেক নিয়মনীতি থাকে। তারা চাইলেই যেকোনো ফল খেতে পারেন না। কিছু ফল রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়িয়ে দিয়ে থাকে। যেমন আম, লিচু, কলা। এসব ফলে জিআই বা ইনডেক্স উপরের দিকের তালিকায় পড়ে। এ কারণে এসব ফল ডায়াবেটিস রোগীদের এড়িয়ে চলা উচিত।

নাসপাতি: নাসপাতিতে ফাইবারের পরিমাণ বেশি রয়েছে। তাই ডায়াবেটিক ডায়েটে নাসপাতি রাখা উচিত। এমনকি ফ্রুটস সালাদেও রাখা যেতে পারে এই ফল।

আপেল: বছরের প্রায় সময়ই এখন আপেল পাওয়া যায়। আপেলের গুণ সম্পর্কে বোধ হয় বলার কিছু প্রয়োজন নেই। এতেও ফাইবারের পরিমাণ অধিকমাত্রায় থাকায় আপেল খাওয়ার ফলে দীর্ঘক্ষণ পেট ভর্তি থাকে। এছাড়াও ভিটামিন-সি রয়েছে আপেলে।

পিচ: পিচ ফল খুবই উপকারী। প্রচুর পরিমাণে ফাইবার রয়েছে। নিয়মিত খাওয়ার ফলে শরীরের বিপাক হার বৃদ্ধি করতে সহায়তা করে এই ফল। যাদের স্মুদি খাওয়ার অভ্যাস রয়েছে তারা রোজ সকালে দই বা ঘোলের সঙ্গে সামান্য দারচিনি গুঁড়ো, হালকা আদা এবং কয়েকটি পিচের টুকরো দিয়ে স্মুদি তৈরি করতে পারেন।

জাম: জামে অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টের পরিমাণ বেশি থাকায় শরীরের জন্য অত্যন্ত ভালো এটি। সেই সঙ্গে স্ট্রবেরিসহ অন্যান্য জামজাতীয় ফল খাওয়া যেতে পারে। ফল বা সালাদ হিসেবে চেরি, স্ট্রবেরি ও জাম ইত্যাদি নিয়মিত খেতে পারেন। এতে বেশ উপকার পাবেন।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি anusandhan24.com'কে জানাতে ই-মেইল করুন- anusondhan24@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

anusandhan24.com'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। anusandhan24.com | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT