রবিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ৯ই আশ্বিন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

আগাম নির্বাচনের পথে পাকিস্তান?

প্রকাশিত : ০৪:৪৫ অপরাহ্ণ, ২৮ নভেম্বর ২০২২ সোমবার ৩৭ বার পঠিত

অনলাইন নিউজ ডেক্স :

‘সেনা-মার্কিন ষড়যন্ত্রে’ চলতি বছরের এপ্রিলেই প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে অপসারিত হন ইমরান খান। তারপর থেকেই পাকিস্তানে আগাম নির্বাচনের জন্য আদাজল খেয়ে মাঠে নামেন।

দেশজুড়ে কয়েক দফা বিক্ষোভ-কর্মসূচির পর ২৮ অক্টোবর লাহোরের লিবার্টি চক থেকে ইসলামাবাদমুখী ‘হকিকি আজাদি’ নামে ইতিহাসের সবচেয়ে বড় লংমার্চের শুরু করেন।

উদ্দেশ্য ছিল ক্ষমতাসীন জোট সরকারকে পদত্যাগে বাধ্য করা। প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফের গদিতে মৃদু কম্পন উঠেছিল সেদিনই। শনিবার রাতে মারলেন ‘শেষ পেরেক’। রাওয়ালপিন্ডির গ্যারিসন শহরের হাজার হাজার নেতা-কর্মী-সমর্থকের সামনে পাকিস্তানের প্রাদেশিক পরিষদ থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দিলেন।

বিশ্লেষকরা বলছেন, সরকারকে চাপে ফেলতেই এই তীর ছুড়েলেন ইমরান খান। প্রাদেশিক পরিষদ ভেঙে দেওয়া বর্তমান সরকারের জন্য একটি বড় সাংবিধানিক সংকটে পড়বে শাহবাজ সরকার। তখন দেশটির আগাম নির্বাচন ছাড়া কোনো বিকল্প থাকবে না। খবর ডন, জিও টিভি, আলজাজিরার।

এদিন আরও একটি বড় ঘোষণা দেন পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের (পিটিআই) নেতা ইমরান খান। আগাম নির্বাচনের দাবিতে এতদিনের ‘লংমার্চ’ প্রত্যাহার করেছেন। বলেছেন, মুদ্রাস্ফীতির চোরাবালিতে ডুবে থাকা পাকিস্তানে রাজনৈতিক ‘বিশৃঙ্খলা’ এড়াতে লংমার্চ বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ইসলামাবাদে যাব না। কারণ আমি জানি সেখানে গেলে দেশের আরও বিপর্যয় ঘটবে। জানমালের ক্ষতি হবে। জনগণের উদ্দেশে এসময় আবেগঘন আহ্বানে জানান, দেশ এখন অর্থনৈতিক সংকটের মুখোমুখি। তাই এ সময় ‘বিশৃঙ্খলা’ ঘটলে তা দেশের কোনো স্বার্থ বয়ে আনবে না। গুলিবিদ্ধ (৩ নভেম্বর) হওয়ার পর প্রথমবার শনিবার প্রথমবার লংমার্চে যোগ দেন ইমরান। তার সমাবেশকে কেন্দ্র করে জড়ো হন হাজার হাজার সমর্থক। তাদের উদ্দেশে ইমরান বলেন, ‘আমরা দুর্নীতিবাজ এ সরকারের সঙ্গে থাকতে চাই না। আমরা এ ব্যবস্থার অংশ হব না। আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি প্রাদেশিক সব পরিষদ থেকে বের হয়ে যাব।’ প্রসঙ্গত, ফেডারেল পার্লামেন্ট থেকে আগেই পদত্যাগ করেছে ইমরানের দল পিটিআই। তবে দুটি প্রদেশ এবং দুটি প্রশাসনিক ইউনিট- গিলগিট-বালতিস্তান ও পাকিস্তান-শাসিত কাশ্মীরে ক্ষমতায় রয়েছে দলটি। এর মধ্যে পাঞ্জাব ও খাইবার পাখতুনখোয়া রাজ্যের অ্যাসেম্বলি থেকে পদত্যাগ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ইমরান।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি anusandhan24.com'কে জানাতে ই-মেইল করুন- anusondhan24@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

anusandhan24.com'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।



এই বিভাগের জনপ্রিয়

ইরানি বংশোদ্ভূত দুই ব্রিটিশ নাগরিককে দীর্ঘদিন বন্দি রাখার পর মুক্তি দিয়েছে তেহরান। ৪৩ বছর আগের দেনা হিসেবে যুক্তরাজ্য ৪০ কোটি পাউন্ড ইরানের কাছে হস্তান্তরের পর তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।     বিবিসির প্রতিবেদন অনুযায়ী, মুক্তির পর নাজানিন জাঘারি ও আনোশেহ আশোরি যুক্তরাজ্যে পৌঁছেছেন।  নাজানিন জাঘারি প্রায় ছয় বছর ধরে ইরানে বন্দিজীবন কাটিয়েছেন। সরকার উৎখাতের ষড়যন্ত্র করেছেন বলে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়।  নাজানিন জাঘারি ও আনোশেহ আশোরিকে বহনকারী প্লেন অক্সফোর্ডশায়ারের ব্রিজ নর্টন ব্রিটিশ সামরিক বিমানঘাঁটিতে অবতরণ করে। এর আগে তারা ওমানে সাময়িক সময়ের জন্য যাত্রা বিরতি নেন।  তারা একসঙ্গেই প্লেন থেকে নেমে আসেন এবং বিমানবন্দরে প্রবেশের পর পর উপস্থিত লোকজনের উদ্দেশে হাত নাড়েন। এদিকে মার্কিন নাগরিকত্ব থাকা মোরাদ তাহবেজ নামে আরও একজনকেও কারাগার থেকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে।  বুধবার তাদের মুক্তির বিষয়টি নিশ্চিত করেন ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী লিজ ত্রাস এবং প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।   এ বিষয় ইরানের গণমাধ্যম জানিয়েছে, এর আগে ইরানের কাছে ইসলামি বিপ্লবের আগে অর্থাৎ প্রায় ৪৩ বছর আগের দেনা হিসেবে ব্রিটিশ সরকার তেহরানকে ৪০ কোটি পাউন্ড (৫২০ মিলিয়ন ডলার) প্রদান করেছে।  ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেন, এটি নিশ্চিত করতে পেরে আমি খুব খুশি, নাজানিন জাঘারি এবং আনোশেহ আশোরিকে অন্যায়ভাবে বন্দি রাখার দিন শেষ হয়েছে। তারা মুক্তি পেয়ে যুক্তরাজ্যে ফিরেছে।

ইরানি বংশোদ্ভূত দুই ব্রিটিশ নাগরিককে দীর্ঘদিন বন্দি রাখার পর মুক্তি দিয়েছে তেহরান। ৪৩ বছর আগের দেনা হিসেবে যুক্তরাজ্য ৪০ কোটি পাউন্ড ইরানের কাছে হস্তান্তরের পর তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। বিবিসির প্রতিবেদন অনুযায়ী, মুক্তির পর নাজানিন জাঘারি ও আনোশেহ আশোরি যুক্তরাজ্যে পৌঁছেছেন। নাজানিন জাঘারি প্রায় ছয় বছর ধরে ইরানে বন্দিজীবন কাটিয়েছেন। সরকার উৎখাতের ষড়যন্ত্র করেছেন বলে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়। নাজানিন জাঘারি ও আনোশেহ আশোরিকে বহনকারী প্লেন অক্সফোর্ডশায়ারের ব্রিজ নর্টন ব্রিটিশ সামরিক বিমানঘাঁটিতে অবতরণ করে। এর আগে তারা ওমানে সাময়িক সময়ের জন্য যাত্রা বিরতি নেন। তারা একসঙ্গেই প্লেন থেকে নেমে আসেন এবং বিমানবন্দরে প্রবেশের পর পর উপস্থিত লোকজনের উদ্দেশে হাত নাড়েন। এদিকে মার্কিন নাগরিকত্ব থাকা মোরাদ তাহবেজ নামে আরও একজনকেও কারাগার থেকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। বুধবার তাদের মুক্তির বিষয়টি নিশ্চিত করেন ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী লিজ ত্রাস এবং প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। এ বিষয় ইরানের গণমাধ্যম জানিয়েছে, এর আগে ইরানের কাছে ইসলামি বিপ্লবের আগে অর্থাৎ প্রায় ৪৩ বছর আগের দেনা হিসেবে ব্রিটিশ সরকার তেহরানকে ৪০ কোটি পাউন্ড (৫২০ মিলিয়ন ডলার) প্রদান করেছে। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেন, এটি নিশ্চিত করতে পেরে আমি খুব খুশি, নাজানিন জাঘারি এবং আনোশেহ আশোরিকে অন্যায়ভাবে বন্দি রাখার দিন শেষ হয়েছে। তারা মুক্তি পেয়ে যুক্তরাজ্যে ফিরেছে।

© ২০২৩ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। anusandhan24.com | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT